Phone: 7648681, 7644305

Ideal School

A Global-Standard School with a Difference

স্কুলের লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য :

লক্ষ্য : আমাদের প্রধান লক্ষ্য নারায়ণগঞ্জের প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের বিদ্যালয়ের পক্ষে সম্ভব শিক্ষার্থীদের গুণগত শিক্ষা প্রদান করা। এই শিক্ষার্থীদের জীবন গঠনের জন্য সুচরিত্রবান হওয়ার পথ নির্দেশ করা। দেশপ্রেমিক হওয়ার প্রয়োজনীয়তা ব্যাখ্যা করা, সৎ ও ন্যায়-নীতিবান করার গুরুত্ব ও তাৎপর্য শেখানো, জীবনে সুকুমার বৃত্তির জাগরণ ঘটানো এবং দক্ষ ও কর্মঠ নাগরিক গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখা। আমরা মনে করি একজন সম্পূর্ণ মানুষ হওয়ার জন্য শিশুদের শৈশব ও কৈশরের প্রয়োজনীয় বিকাশের যথাযথ উপকরণ ও পরিবেশ দান করাই আমাদের লক্ষ্য।

উদ্দেশ্য : লক্ষ্যকে বাস্তবে রূপ দেয়ার জন্য আমাদের প্রয়োজন বিদ্যালয় অবকাঠামো নির্মাণ, শ্রেণিকক্ষ সজ্জাকরণ, প্রয়োজনীয় শিক্ষোপকরণ ব্যবস্থাপনা, যোগ্য ও দক্ষ শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী নিয়োগ এবং নিয়মিত প্রশিক্ষণ দান। সুনির্দিষ্ট নিয়ম-নীতি ও আইন কানুনের মাধ্যমে বিদ্যালয় প্রশাসন ও ব্যবস্থাপনা পরিচালনা করা। শিক্ষার্থীর স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা বিদ্যালয়ের উদ্দেশ্যগুলোর অন্যতম। ছাত্র-শিক্ষক-অভিভাবকের সাথে কার্যকরি ও দ্রুত যোগাযোগের জন্য শিক্ষার্থী নিয়ন্ত্রণ। অর্থব্যবস্থাপনা এবং যুগোপযোগী শিক্ষা দানের জন্য আধুনিক তথ্য ও প্রযুক্তির ব্যবহার করা।

Read More

শিক্ষাদান পদ্ধতি :

নারায়ণগঞ্জ আইডয়াল স্কুলে ছেলে-মেয়েদেরকে একত্রে পাঠদান করা হয়। এখানে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক দুটি শাখা রয়েছে। প্রাথমিক শাখা ৭.৩০টা থেকে ১১.০০টা পর্যন্ত শ্রেণি কার্যক্রম চলে। মাধ্যমিক শাখা ১২.০০টা থেকে ৫.৩০ পর্যন্ত। প্রতিটি শ্রেণি শাখায় সর্বোচ্চ ৪০ জন করে শিক্ষার্থী রেখে পাঠদান নির্বিঘœ করা হয়। ছাত্র : শিক্ষক = ১৯ : ১। মাধ্যমিক শাখায় সকল বিষয় বিভাগীয় শিক্ষক দ্বারা পাঠদান করানো হয়। উদাহরণ হিসেবে English বিভাগের শিক্ষক শুধুমাত্র ইংরেজি পাঠদান করে থাকেন যা কলেজ, বিশ^বিদ্যালয়ে করা হয়। শিক্ষক, শিক্ষার্থীদের জন্য ডায়েরি ব্যবহার বাধ্যতামূলক। শিক্ষার্থীদের ভালো তত্ত্বাবধানের জন্য প্রতি শাখার পড়াশুনা তদারকি করার জন্য একজন শ্রেণি শিক্ষক এবং আচার-ব্যবহার, নীতি-নৈতিকতা, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, পোষাক-পরিচ্ছদ ইত্যাদি দেখভাল ও পরামর্শ প্রদানের জন্য একজন গাইড শিক্ষক আছেন।
অভিভাবকদের সাথে মত বিনিময় করার জন্য শ্রেণিভিত্তিক বছরে কমপক্ষে দু’টি অভিভাবক দিবস পালন করা হয়।
শিক্ষার্থীদের অন্তর্নিহিত প্রতিভা বা সৃজনশীলতা চর্চা ও বৃদ্ধির জন্য অত্র বিদ্যালয়ে বিভিন্ন বিষয় ভিত্তিক ৯টি ক্লাব রয়েছে। এই ক্লাবগুলো মূলত বিদ্যালয়ে ন্যূনতম একটি অবশ্য পাঠ্য হিসেবে নৃত্য, সঙ্গীত, চিত্রকলা, অভিনয়, আবৃত্তি, বিতর্ক, স্কাউটিং, সাধারণ জ্ঞান নিতে হয়। এই সকল বিষয়ের উপর চর্চা করানোর জন্য ক্লাব ভিত্তিক সারা বছর কর্মসূচী থাকে। ক্লাব প্যাট্রন, সহ-প্যাট্রন শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে গঠিত পরিচালনা কমিটি এই কর্মসূচী বাস্তবায়ন করে থাকে।
বিদ্যালয় সম্পর্কে জানানোর জন্য www.idealshcool.edu.bd website রয়েছে। রয়েছে যোগাযোগের দ্রুত মাধ্যম হিসেবে ঝগঝ সেবা। প্রতিটি শ্রেণি কক্ষসহ পুরো স্কুল সিসি ক্যামেরা দ্বারা নিয়ন্ত্রিত।
পঠন বিষয় জীবনে চর্চার জন্য রয়েছে বিজ্ঞান ল্যাব, কম্পিউটার ল্যাব, পনের হাজার বই সমৃদ্ধ বিশাল গ্রন্থাগার। শিক্ষক, শিক্ষার্থী সবাইকে এই গ্রন্থাগার থেকে বই পড়া কর্মসূচীর অধীনে বাধ্যতামূলক ভাবে বই পড়তে হয়, আলোচনা করতে হয়।

Read More

স্কুল প্রদত্ত সুবিধাদি :

বিদ্যালয়ের শিক্ষাদান পদ্ধতির মধ্যেই সুবিধাদি অনেকটা বর্ণিত হয়েছে। তারপরও আরো অনেক সুবিধা ও সহযোগিতা শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের প্রদান করে থাকে। যেমন- (১) শিক্ষার্থীদের পূর্ণ নিরাপত্তা প্রদান। (২) মূল পাঠের পাশাপাশি নাচ, গান, আবৃত্তি, অভিনয়, চিত্রাঙ্কন, কী-বোর্ড, গিটার, তবলা, স্কাউটিং, রেডক্রস, বিতর্ক বিশেষজ্ঞ শিক্ষক দ্বারা শেখানো। এর বিনিময়ে কোনো অতিরিক্ত ফিস নেয়া হয় না। (৩) সার্বক্ষনিক বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য নিজস্ব জেনারেটর রয়েছে। (৪) কম্পিউটার ল্যাব সবার জন্য উন্মুক্ত ইন্টারনেট সেবা প্রদান। (৫) বিদ্যালয়ের ক্যাশ গ্রহণ, রেজাল্ট প্রদান, যোগাযোগের জন্য ঝগঝ ইত্যাদি সফ্টওয়্যার কর্তৃক পরিচালিত। (৬) জাতীয় বিজ্ঞান প্রজেক্ট, জাতীয় দেয়ালিকা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ, গণিত, বিজ্ঞান ও এস্ট্রোনমি অলিম্পিয়াডে অংশগ্রহণ করার সুযোগ বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকেই করানো হয়। তাছাড়া জাতীয় শিশু প্রতিযোগিতা, সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ প্রতিযোগিতা, জাতীয় বিজ্ঞান বিতর্ক, শিশুদের জাতীয় মৌসুমী প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহ করিয়ে থাকে। এজন্য শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ, চর্চা এবং অংশগ্রহণ বাবদ কোনো অর্থ গ্রহণ করা হয় না। (৭) ডে-গার্ড, নাইট-গার্ডের বাহিরে মেয়েদের সার্বিক নিরাপত্তার জন্য তিনজন মহিলা নিরাপত্তা কর্মকর্তা রয়েছেন। (৮) ছেলে ও মেয়েদের জন্য পৃথক টয়লেট ইত্যাদি সুবিধা। (৯) আনরুলি ছেলে-মেয়েদের জন্য কাউন্সেলর রয়েছেন। (১০) বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষকদেরকে গেস্ট টিচার হিসেবে নিয়োগ দিয়ে নবম, দশমের শিক্ষার্থীদেরকে উচ্চতর জ্ঞানদান করা হয়।

Read More

সহপাঠ আয়োজন :

শিক্ষার্থীদের নান্দনিক সৌন্দর্যবোধ তৈরি করার জন্য এবং এবং তাদের মধ্যে লুকায়িত প্রতীভা বিকাশের জন্য বহু প্রকারের বিষয় যেমন- নাচ, গান, আবৃত্তি, চিত্রাঙ্কন, বিতর্ক, অভিনয়, স্কাউটিং, রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি পড়ানো ও চর্চা করানো হয়। চর্চা করানোর জন্য বিভিন্ন প্রকার ক্লাব যেমন- ভাষা ও সাহিত্য ক্লাব, ইংলিশ ক্লাব, বিজ্ঞান ও গণিত ক্লাব, বিতর্ক ক্লাব, মুভ্স দ্যা গুডনেস ক্লাব গঠন করা হয়েছে। এসকল ক্লাবের অধীনে শিক্ষার্থীদের সারা বছর নির্দিষ্ট কর্মসূচী বাস্তবায়ন করানো হয়। এতে করে তারা যেমন নিজেকে বিকশিত করতে পারে, তেমনি নেতৃত্ব দেয়ার মত গুণাবলী সৃষ্টি করতে পারে। তাছাড়া এ সকল ক্লাবের অধীনে জাতীয় অনুষ্ঠানমালা বা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে থাকে।
ক্লাবগুলো পরিচালনার জন্য প্রতি ক্লাবে দুই থেকে তিনজন শিক্ষক, দুইজন অনুষ্ঠান আয়োজক এবং ১৫ থেকে ২০ জন্য শিক্ষার্থী ব্যবস্থাপনা মিটিতে নিযুক্ত থাকে। এছাড়া প্রতি ক্লাবে শতাধিক সাধারণ সদস্য থাকে যারা ক্লাবের আয়োজিত অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে থাকে।

Read More

সভাপতির বক্তব্য:

Mr. Kashem Jamal বাস্তবতার নিরীখে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য অর্জনের জন্য যুগোপযোগী ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম পরিচালনা করা উচিৎ বলে আমি মনে করি। সুষ্ঠু দিক নির্দেশনার মাধ্যমে একটি প্রতিষ্ঠানের অগ্রগতি সম্ভব। সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার পাশাপাশি বিদ্যালয়ে গরীব মেধাবী ছাত্র/ছাত্রীদের মাঝে আর্থিক সহায়তা প্রদানসহ মেধাবী শিক্ষার্থীদের বৃত্তি প্রদান অব্যাহত রেখেছি। ভবিষ্যতে এই বিদ্যালয়কে নারায়ণগঞ্জ জেলার মধ্যে একটি আদর্শ ও মানসম্মত বিদ্যালয়ে পরিণত করার সঠিক ও বাস্তবসম্মত সিদ্ধান্ত গ্রহনে চেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

প্রধান শিক্ষককের বাণী

Mr. Anwar Hossain অত্যন্ত আনন্দের সাথে জানাচ্ছি যে, বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান-এর সকল কর্মকান্ড ওয়েব সাইটে প্রকাশিত হতে যাচ্ছে। বর্তমান সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ বির্নিমানে এবং “ভিশন-2021” বাস্তবায়নে আমরাও অংশীদার হ’তে চাই। শিক্ষা, সংস্কৃতি, খেলাধুলা, বিতর্কসহ জাতীয় ও সামাজিক অঙ্গনে অত্র বিদ্যালয়ের রয়েছে স্ব-গর্ব পদচারণা। এই ওয়েব সাইটের মাধ্যমে সকল অভিভাবক তথা সাধারন মানুষ বিদ্যালয়ের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সুনাম, শিক্ষক/শিক্ষিকা ও কর্মচারীদের পরিচিতি, শিক্ষার্থী সংখ্যা, অবকাঠামোগত সুযোগ-সুবিধা, শিক্ষাদান পদ্ধতি, ফলাফল সহ সার্বিক বিষয়ে সহজে অবহিত হ’তে পারবেন, যা সময়ের প্রয়োজনে যুগোপযোগী একটি পদক্ষেপ। উক্ত ওয়েব সাইটি তৈরীতে যাঁরা কারিগরি ও সার্বিকভাবে সহায়তা প্রদান করেছেন, তাঁদেরকে আমার তথা বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি। ওয়েব সাইটি আরোও উন্নত এবং ফলপ্রসূ করতে সকল অভিভাবক/সূধী মহলের মতামত ও পরামর্শ বিশেষভাবে কামনা করছি। সকলকে ধন্যবাদ। 

Location Map